ন্যায় – ড. এমদাদুল হক

আইন অমান্য করা অপরাধ। অপরাধের বিচার হয় আইনানুযায়ী। বিচারক ঘটনা দেখে না- দেখে প্রমাণ ও যুক্তি। তাই হত্যাকারীও আইনের ফাঁক দিয়ে বেরিয়ে যায়, আবার নিরপরাধীরও প্রাণদণ্ড হয়।
ন্যায় আইনের ধারা-উপধারা নয়। উকিলী ন্যায়, বিচারিক ন্যায়, আর বাস্তব ন্যায়ের মধ্যে পার্থক্য অনেক।
চাওয়া-পাওয়ার জগতে একজনের জন্য যা ন্যায়, আরেকজনের জন্য তা অন্যায়। একদেশের জন্য যে বীর, অন্যদেশের জন্য সে নপুংসক।
ব্যক্তিস্বার্থে অন্ধ মানুষ তাকেই অন্যায় বলে যা নিজের বিরুদ্ধে যায়; তাকেই ন্যায় বলে যা নিজের পক্ষে যায়। মানুষ দেখে শুধু স্বার্থ- কার্য-কারণ সম্বন্ধ দেখে না।
কেউ নিজের অন্যায় দেখে না, কিন্তু আরেকজনের অন্যায় সবাই দেখে। স্বার্থের ঊর্ধ্বে না উঠতে পারলে নিজের অন্যায় এবং আরেকজনের ন্যায় দেখা যায় না।
“অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে তব ঘৃণা যেন তারে তৃণসম দহে।” কথাটি তো ঠিকই মনে হয়, কিন্তু অন্যায়টি নির্ণয় করবে কে? কে আছে এমন যে ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে? গোষ্ঠী স্বার্থের ঊর্ধ্বে? দল দেশ ও জাতিগত স্বার্থের ঊর্ধ্বে?
আক্রান্ত হলে প্রতিরোধ করা ন্যায়সঙ্গত মনে করে প্রত্যেকেই। নিজের মা, বোন, ভাই কিংবা দেশ আক্রান্ত হলে হত্যাকেও আমরা ন্যায় বলি। বাস্তবে ‘ন্যায় হত্যা’ বলতে কিছু আছে কি? যতদিন পর্যন্ত ‘ন্যায় হত্যার’ ধারণা থাকবে ততদিন হত্যাই থাকবে- ন্যায় নয়।
খবরে প্রকাশ ঐদিন এক আরএসএস জঙ্গি বলছে, ‘তারা গরু হত্যা করে, আর আমরা তাদের হত্যা করি’। বাইরে তার সমর্থনে জিন্দাবাদ শ্লোগান দেওয়ার লোকও নাকি ছিল। গরুর বিনিময়ে মানুষ- এই যদি হয় আরএসএস-ন্যায়, তবে পৃথিবীতে শুধু গরুই থাকবে- মানুষ নয়।
প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ, চক্ষুর বিনিময়ে চক্ষু, নাকের বিনিময়ে নাক, কানের বিনিময়ে কান, দাঁতের বিনিময়ে দাঁত যদি এই হয় ন্যায়, তবে প্রাণ বিলুপ্ত হয়ে যাবে, যারা বেঁচে থাকবে তাদের চক্ষু থাকলে নাক থাকবে না, নাক থাকলে কান থাকবে না, কান থাকলে দাঁত থাকবে না।
ন্যায় আইন-কানুন, দৃষ্টিভঙ্গি নয়। আমার দৃষ্টিভঙ্গি ন্যায়, আর তোমার দৃষ্টিভঙ্গি অন্যায়, এমন কোনো ব্যাপার নেই। দৃষ্টিভঙ্গি বাস্তব নয়। বাস্তবতা কি? বাস্তবতা হলো ঘটনা। যা ঘটেছিল তা অতীত, যা ঘটছে তা বর্তমান, যা ঘটবে তা ভবিষ্যৎ। ভবিষ্যতে কী ঘটবে, তা নির্ভর করে বর্তমানের উপর; অতীতে যা ঘটেছিল তার ফল দেখা যাচ্ছে বর্তমানে। সুতরাং এখন এবং এখানে যা ঘটছে, তাতেই নিহিত আছে ন্যায়-অন্যায়।
কারবালায় কী ঘটেছিল তা আমরা জানি না, ভবিষ্যতে কী ঘটবে তাও আমরা জানি না, আমাদের সম্মুখে আছে বর্তমান। আর, বর্তমানের ঘটনায় সুপ্ত আছে অতীত ও ভবিষ্যতের সমস্ত কারবালা।
ঘটনাসমূহের বিশ্লেষণে নানা মত আমরা গড়ে তুলতে পারি। কিন্তু মতামতগুলো সত্য নয়- সত্য হলো ঘটনা। তবু অবিরত আমরা মত প্রচার করি, যা ন্যায় তো নয়ই, বরং অন্যায়ের ভিত্তি হিসেবে কাজ করে।
মতামতের পীড়নে ন্যায় এখন স্থান পেয়েছে কিতাবে, আর বাস্তবে অন্যায়ে ভেসে যাচ্ছে মানবজাতি।
বাস্তবে ন্যায় কোথায় আছে? তুমি চালাক জিতে যাচ্ছ, আমি বোকা হেরে যাচ্ছি। তোমার মামা আছে, উঁচু বেতনের চাকরি পেয়ে গেছ, তার মামা নেই- বেকার। ন্যায় কোথায়? তোমার শক্তি আছে, ছিনতাই কর। তার শক্তি নেই- কবলিত হয়। ন্যায় কোথায়?
তুমি দেখতে সুন্দর, হাজার প্রেমিক লাইনে অপেক্ষায়। আমি দেখতে কুৎসিত, কেউ জিগায় না। ন্যায় কোথায়?
বাস্তবে ন্যায় আমরা কোথাও দেখি না। ন্যায় সম্বন্ধে আমরা আলোচনা করি, কিন্তু ন্যায় করি না। ঈশ্বর পরম ন্যায়বান- এই সব বুলি কপচিয়ে আমরা স্বস্তি লাভ করি। আর বাস্তব পৃথিবী? বাস্তব পৃথিবী ডুবে থাকে অন্যায়ের পঙ্কিলতায়।
ন্যায় যেহেতু কোথাও নেই, আমি ন্যায় করবো কেন? প্রশ্নটি যুক্তসঙ্গত মনে হয় বটে, কিন্তু যৌক্তিক নয়। সবাই যখন বিশ্বাস করত যে সূর্য পৃথিবীর চারিদিকে ঘুরে তখন কি সূর্য পৃথিবীর চারিদিকে ঘুরত? সকলের দাবি ছিল অন্যায়। এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে একজন জিওর্দানো ব্রুনো ন্যায়দণ্ড হাতে নিয়ে বললেন, ‘আমার কাছে প্রমাণ আছে, পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘুরে’। প্রমাণ উপস্থাপন করলেন তিনি, কেউ বুঝল না। কীভাবে বুঝবে? তাদের মাথায় গিজগিজ করছে কিতাবি ন্যায়! বিচার হলো তার। তাদের দৃষ্টিতে ন্যায়বিচারই হলো! জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করে হত্যা করা হলো তাকে।
ব্রুনোর ন্যায় কিতাবি ন্যায় ছিল না- তার ন্যায় ছিল বাস্তব জ্ঞান, যা কিতাবের বিরুদ্ধে গেছে। তাই নিহত ব্রুনো বেঁচে আছে এখনো। পৃথিবী ঘুরছে সূর্যের চারিদিকে।
অগ্নিদগ্ধ ব্রুনো গোটা মানবজাতিকে আর্ত চিৎকারে শিক্ষা দিয়ে গেলেন, ‘শাস্তির ভয় আর পুরস্কারের লোভ’ থাকলে ন্যায় করা যায় না। ন্যায় কেবল সেই করতে পারে যে, স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও প্রেমময়।
ন্যায়-অন্যায়ের তালিকাগুলো মানবজাতির লজ্জা! কোনটি ন্যায়, আর কোনটি অন্যায় তা বুঝার জন্য কিতাবের প্রয়োজন নেই- মনুষ্য-সংবেদনই যথেষ্ট। যখন একটি বই মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখি, আর একটি জুতাকে টেবিলের উপর দেখি তখন তা আমাদের সংবেদনে একটা নাড়া দেয়- এক ধরনের অস্বস্তি তৈরি হয়। বইটি টেবিলে রাখার ও জুতাটি মেঝেতে রাখার একটি তাড়না উৎপন্ন হয়। এই তাড়নাটিই ন্যায়। যে এই তাড়নাটিকে নিরন্তর অস্তিত্বপ্রদান করতে থাকে তার চৈতন্যে ন্যায় প্রকট হতে থাকে, যে অবজ্ঞা করতে থাকে তার চৈতন্য অন্যায়ে আবৃত হতে থাকে এবং ধীরে ধীরে দুর্বল হতে থাকে; সর্বদাই ভয় তাকে তাড়া করে। সে যত সুরক্ষাই তৈরি করুক না কেন- সুরক্ষিত নয় মোটেও।
ন্যায়কে সর্বোচ্চ মূল্য দেয়ার সঙ্গে-সঙ্গে ব্যক্তিস্বার্থ লোপ পেতে থাকে এবং দৃষ্টিভঙ্গি নিরপেক্ষ অবস্থানে আসতে থাকে। নায়ের প্রতি যার নিষ্ঠা আছে সে ন্যায়নিষ্ঠ। সে অপারাজেয়। কেউ তাকে পরাভূত কিংবা বিভ্রান্ত করতে পারে না। ন্যায়ের প্রতি নিষ্ঠা ছাড়া তার জন্য আর কোনো সুরক্ষার প্রয়োজন নেই। ন্যায়নিষ্ঠ ব্যক্তির গোপন করার কিছু নেই। সে এমন কোনো চিন্তাও করে না, যা প্রকাশ করা অন্যায় হতে পারে। ন্যায়নিষ্ঠ ব্যক্তি নির্ভীক। যে অন্যায় করে না, তার ভয় থাকবে কী করে? তার প্রত্যেকটি পদক্ষেপ দৃঢ় এবং শির উন্নত। তার বিবৃতি দ্ব্যর্থতা মুক্ত।
ধর্ম ন্যায় নয়। ন্যায়ই ধর্ম।

Source: Facebook

(Visited 1 times, 1 visits today)

Related Post

যেভাবে রিচার্জ করলে ফোনের ব্যাটারি টিকবে দীর্ঘদিন... স্মার্ট ফোন কেনার কিছুদিন পরেই অনেকের ব্যাটারি দুর্বল হয়ে যায়। স্মার্ট ফোন ফুল চার্জ করে বাইরে বের হতে না হতেই চার্জ শেষ। আর তাই সারাক্ষণই স্মার্ট ফোন...
সময় নাই – ড. এমদাদুল হক... মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছর। এর মধ্যে প্রায় ২৫ বছর ঘুমিয়ে কাটে। ২৫ বছর কেটে যায় লেখাপড়ার সার্টিফিকেট নিতে। জীবনযাপনের প্রস্তুতি নিতে নিতে হঠাৎ তাকিয়ে দেখে স...
Earn money with coinbase Coinbase is the most popular cryptocurrency wallet in the world. This is the best and most secure way to get and pay Bitcoin or other currency. But th...
আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহারকারীদের জন্য সুখবর... আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহারকারীদের জন্য সুখবর দিতে পারে মার্কিন প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপল ইনকরপোরেশন। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে ডিজিটাল ভিডিও...
A journey by boat paragraph Dear friends, here i have written a paragraph about a journey by boat paragraph or essay. That was journey in a boat story in bangladesh. This paragra...
Tomar khola hawa lyrics bangla Dear friends, here you will get tomar khola hawa bangla song lyrics in bengali font. This song is written by rabindranath tagore. It called in bengali...
প্রতিদিনের খাদ্যতালিকার পাঁচ খাবার ডেকে আনছে মরণ র... প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় চোখ রাখলে অনেক সময়েই আঁতকে উঠতে হয়, বিশেষ করে যখন জানা যায় এই খাদ্যতালিকার বেশ কয়েকটি খাবারই আমাদের শরীরে মারণ রোগ ক্যানসারকে ...
মাছে-ফলে-সবজিতে বিষ – মোনেম অপু... মাছ ও ফল সংরক্ষণে ফরমালিন ব্যবহার চলে আসছে কত বছর হলো! রুই-কাতলা, আম-কলা, সবজি, দুধ কিছুই রেহায় পাচ্ছে না। ফরমালিন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। ক...
Free ad posting sites in bangladesh Free ad posting sites in Bangladesh, on this post you will get some most popular free ad posting sites in Bangladesh. On these site you can post your ...
তাদের এখনই এমপি হওয়া খুব জরুরি?... বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের দুই তারকা ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তাজা ও সাকিব আল হাসান বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র কিনবেন বলে বিভিন্ন ...

Leave a Reply